ঘরে বসে নিজেই হন ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার - Slunečnice.cz

 ঘরে বসে নিজেই হন ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার 1.0.1

Pro hodnocení programu se prosím nejprve přihlaste

Staženo 0 ×
Zdarma

Sdílet

ইলেকট্রনিক্স হল এমন একটা বিষয় যেখানে ইলেকট্রন এর উপরে নানা ধরনের কার্যকলাপ ঘটানো হয় ও কোন ডিভাইস এর ভেতরে এর প্রবাহের দিক ও পরিমান নিয়ন্ত্রন করা হয়। সাধারনত সেমিকন্ডাক্টর বা অর্ধপরিবাহি পদার্থের তৈরি ডিভাইসগুলি দিয়েই এ কাজ করা হয়। সাথে সহকারী হিসাবে পরিবাহী পদার্থের তৈরি ডিভাইসও থাকতে পারে। কিন্তু ডিভাইস গুলিকে কার্যক্ষম করতে হলে এদেরকে অবশ্যই যথাযথ নিয়ম অনুসারে কোন ইলেকট্রনিক সার্কিট বা বর্তনীতে সংযুক্ত করতে হয়। বর্তনী হল কিছু তড়িৎ যন্ত্রাংশের সমন্বয় যা দিয়ে তড়িৎ সম্বন্ধীয় নির্দিষ্ট কোন কাজ করা যায়।
বেজ নির্নয়
মাল্টিমিটার এর সিলেক্টর নব কে রেজিস্ট্যান্স/ডায়োড মাপার জন্য সেট করতে হবে।
ট্রানজিস্টরের ৩টি প্রান্তের যেকোন একটি কে এনপিএন ট্রানজিস্টরের বেজ অনুমান করে পরীক্ষা করি। তারজন্য-
মাল্টিমিটারের পজেটিভ (লাল রঙের) প্রোব ট্রানজিস্টরের ঐ বেজ অনুমানকৃত পায়ে লাগিয়ে নেগেটিভ প্রোব (কালো রঙের প্রোব) অন্য দুইটি লেগ/প্রান্তে পর্যায়ক্রমে ঠেকিয়ে দেখতে হবে।
একই পরীক্ষা ট্রানজিস্টরের অপর দুটি লেগের ক্ষেত্রেও করতে হবে। অর্থাৎ অপর ২টি লেগ কে “এনপিএন বেজ” অনুমান করে পরীক্ষা করতে হবে।
বেজ থেকে উভয় লেগের রেজিস্ট্যান্স তুলনা করতে হবে মাল্টিমিটার দিয়ে।
যে লেগের রেজিস্ট্যান্স বেশি সেটি উক্ত ট্রানজিস্টরের ইমিটার।
অপরদিকে যে লেগের রেজিস্ট্যান্স কম দেখাবে সেটি কালেক্টর।
তবে এনালগ মাল্টিমিটারের ক্ষেত্রে এটি বেশ দূরূহ কাজ। কারন এই রেজিস্ট্যান্সের মান মাত্র কয়েক ওহম হয়। ফলে এনালগ মাল্টিমিটার এর কাঁটার পরিবর্তন তেমন বোঝা যায় না। কিছু চর্চা ও অনুশীলনের মাধ্যমে এটিকে আয়ত্ব করতে পারবেন। তবে সুখের কথা হলো, এখনকার প্রায় সব এনালগ মাল্টিমিটারেই ট্রানজিস্টর পরীক্ষা করবার আলাদা অপশন আছে।

Pro hodnocení programu se prosím nejprve přihlaste

Staženo
0 ×

TIP: Stahují se vám programy pomalu? Změřte si rychlost svého internetového připojení.